শিরোনাম
  ক্রান্তি লগ্ন-সুলেখা আক্তার শান্তা       শুদ্ধচিত্ত বাংলাদেশ এওয়ার্ড ২০২১ পেলেন কবি মুহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ       সাড়ে ১২ লাখ ড্রাইভিং লাইসেন্সের প্রিন্ট শুরু       কুড়িগ্রামের রাজারহাট প্রেমিকের ধাক্কায় অটোরিকশা থেকে পড়ে কিশোরীর মৃত্যু       নারায়নপুর ইউপি নির্বাচনে কামাল মাতাব্বরকে ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য হিসাবে দেখতে চায় এলাকাবাসী।       বিভীষিকাময় তাজরিন ট্র্যাজেডি, সেই পোড়া গন্ধ এখনো ভুলতে পারেনি শ্রমিকরা       রানা প্লাজার মালিকের জামিন হাইকোর্টে স্থগিত       ব্রাম্মনবাড়ীয়ায় নামাজ পড়ার সময় ইমামের মৃত্যু       ‘ভ্যাকসিন না পেলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা কঠিন’       বেড়েছে চাল তেল পেঁয়াজ আলুর দাম:জড়িতদের বিরুদ্ধে হার্ডলাইনে সরকার    
২৩শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৭ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশিত সময় : নভেম্বর, ১৪, ২০২০, ০৬:৩০ অপরাহ্ণ

খবরটি পড়েছে 141 জন
 

মোঃ সাব্বির হোসেনঃ পরিবর্তন হচ্ছে জগতের অমোঘ এক নিয়ম। সেই নিয়মের সাথে পরিবর্তিত হয় সবই। হই আমরাও। এমনি করে পরিবর্তনের হাওয়া লেগেছে নরসুন্দরদের কর্ম পদ্ধতিতে যা আধুনিকতার ছোঁয়া নামে পরিচিত। সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলে নরসুন্দররা ‘নাপিত’ নামে পরিচিত। একটা সময় ছিল যখন প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলোতে এরা পেশাগত কাজে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে ছিল। কয়েক দশক আগেও সকাল হলেই গ্রামের মেঠোপথ ধরে ধুতি দিয়ে বানানো খতিতে ঝোলা (সেলাই ছাড়া ব্যাগ) ক্ষুর, কেঁচি, সান দেয়ার পাথর, সাবান, ফিটকারিসহ প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি নিয়ে নরসুন্দররা ছুটে চলত খদ্দেরের আশায়। তখন মজুরির ক্ষেত্রে তারা অনেক সম্ভ্রান্ত গৃহস্তদের সাথে চুক্তি করতো। দুই মৌসুমে তারা ধান নিত। আর হাট-বাজারে মাটিতে ছোট টুল বা পিড়ে পেতে বসে নগদ অর্থ নিয়ে কাজ করতো। নরসুন্দররা একাধারে কয়েকদিন তাদের নিদিষ্ট এলকায় অবস্থান করে পারিশ্রমিক তুলে ফিরে আসতো নিজ বাড়িতে। নরসুন্দরদের সেই রেওয়াজ এখন শুধুই ইতিহাস।

আর এখন! শুধু প্রয়োজন মেটানো নয়, সুন্দর হয়ে ওঠার সময়টুুতে খদ্দেররা আরাম-আয়েসে কাটাতে চায়। চায় আধুনিক উপকরণের ছোঁয়া। সেজন্যেই গড়ে উঠেছে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত অত্যাধুনিক সেলুনের ব্যবসা। আধুনিক সেলুন শুধু অভিজাত শহরেই নয় ক্রমান্বয়ে জেলা, উপজেলা এমনকি এখন ইউনিয়ন পর্যন্ত চলে এসেছে। এখন গ্রামের হাট-বাজারগুলোতে গদিমোড়া চেয়ার, বাঁধানো আয়না, মাথার উপর ঘুরতে থাকে বৈদ্যুতিক পাখা, ফোম, ক্রীম, সুবাসিত লোশনসমৃদ্ধ চুল কাটানো, সেইভ করার সেলুনের প্রতি আগ্রহ সবার। চোখ পড়ে না সাবানের ফেনা মুখে দাড়ি কামানো, ছোট বাটিতে পানি নিয়ে পাথরে বা মোটা চামড়ায় ঘষে ক্ষুরের ধার তোলা। সে সময়ে একেকটি এলাকায় নির্দিষ্ট করে একেকজন নরসুন্দর কাজ করতো।

ক্রমেই এ পেশায় পরিবর্তন হতে থাকে। আর এমনি করে গ্রামের সঙ্গে নরসুন্দরদের সংযোগ বিচ্ছিন্ন হতে থাকে। নগরায়ণের যুগে এই পেশায় এখন শুধু একটি জাতি-সম্প্রদায়ের লোকজন নয়, মুসলমান সুশিক্ষিত তরুণরাও এই কাজ করছে। ফলে বৈচিত্র্য হয়ে উঠেছে এই পেশার অন্যতম অনুষঙ্গ।

Facebook Comments

     

আরও পড়ুন

ক্রান্তি লগ্ন-সুলেখা আক্তার শান্তা

শুদ্ধচিত্ত বাংলাদেশ এওয়ার্ড ২০২১ পেলেন কবি মুহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ

সাড়ে ১২ লাখ ড্রাইভিং লাইসেন্সের প্রিন্ট শুরু

কুড়িগ্রামের রাজারহাট প্রেমিকের ধাক্কায় অটোরিকশা থেকে পড়ে কিশোরীর মৃত্যু

নারায়নপুর ইউপি নির্বাচনে কামাল মাতাব্বরকে ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য হিসাবে দেখতে চায় এলাকাবাসী।

বিভীষিকাময় তাজরিন ট্র্যাজেডি, সেই পোড়া গন্ধ এখনো ভুলতে পারেনি শ্রমিকরা

রানা প্লাজার মালিকের জামিন হাইকোর্টে স্থগিত

ব্রাম্মনবাড়ীয়ায় নামাজ পড়ার সময় ইমামের মৃত্যু

‘ভ্যাকসিন না পেলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা কঠিন’

বেড়েছে চাল তেল পেঁয়াজ আলুর দাম:জড়িতদের বিরুদ্ধে হার্ডলাইনে সরকার

 

Top